অর্থনীতি

মজুরি বৃদ্ধির আন্দোলনে চাকরি গেলো ১১ হাজার শ্রমিকের

অনুষ্ঠানে বাণিজ্য মন্ত্রী টিপু মুন্সি মালিক পক্ষকে কিছুটা নমনীয় হবার আহবার জানিয়ে বলেন, তার নিজের কারখানাতেও মুজুরি বৃদ্ধির আন্দোলেনের সময় হামলা হয়েছিল। কিন্তু তিনি মামলা করেননি ও কোন শ্রমিককেও চাকুরিচ্যুত করেননি। তিনি মালিকদের বলেন, মামলাগুলো বিবেচনা করার জন্য আহবান জানান।

অর্থনীতি ডেস্ক: মজুরি বৃদ্ধির আন্দোলন করতে গিয়ে চাকরি গেলো ১১ হাজার শ্রমিকের। যা বাংলাদেশের ইতিহাসে একেবারেই বিরল। গার্মেন্ট শিল্পের হিসেবে এতো বড় কর্মচ্যুতি আর কখনো ঘটেনি। এনজিও ইন্ডাস্ট্রিয়াল অল বাংলাদেশের এক প্রতিবেদনে এ তথ্য উঠে এসেছে।

প্রতিবেদন থেকে জানা যায়, , ঢাকা , সাভার, গাজীপুর ও নারায়ণগঞ্জের
৯৯ টি কারখানায় শ্রমিকদের চাকুরিচ্যুত করা হয়। তাছাড়া সাভার আশুলিয়া এবং গাজীপুরের বিভিন্ন থানায় প্রায় ৩ হাজার ৫০০টি মামলা শ্রমিকদের নামে রয়েছে। যার ফলে শ্রমিকরা প্রতিদিনই হয়রানির হচ্ছেন।

বিজিএম্ইএর সভাপতি সিদ্দিকুর রহমান সম্প্রতি সিপিডির এক অনুষ্ঠানে বলেন, মামলাগুলো করেছে পুলিশ সে বিষয়ে আমাদের করার কিছু নেই বলে কঠোর বার্তা দেন।

সিপিডির ঐ অনুষ্ঠানেই শ্রমিক নেতারা বলেছিনেন, মালিকরা কর্মচ্যুতির ক্ষেত্রে একটি নতুন পদ্ধতি নিয়েছে। তারা কারখানার সমস্ত শ্রমিককে ছাঁটাই করে নতুন করে শ্রমিক নেয় এবং নতুন শ্রমিকরা কম টাকায় যোগদান করান।

অনুষ্ঠানে বাণিজ্য মন্ত্রী টিপু মুন্সি মালিক পক্ষকে কিছুটা নমনীয় হবার আহবার জানিয়ে বলেন, তার নিজের কারখানাতেও মুজুরি বৃদ্ধির আন্দোলেনের সময় হামলা হয়েছিল। কিন্তু তিনি মামলা করেননি ও কোন শ্রমিককেও চাকুরিচ্যুত করেননি। তিনি মালিকদের বলেন, মামলাগুলো বিবেচনা করার জন্য আহবান জানান।

Tags

Related Articles

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *

Close