রাশি

বউ হিসেবে কোন রাশির মেয়েরা কেমন হয়? পরীক্ষালব্ধ প্রমান দিলো জ্যোতিষীরা

স্বামী-স্ত্রীর সম্পর্ক নির্ভর করে দুজনের স্বভাব-চরিত্রের উপর। রাশিফল মানুষের সম্পর্কে অনেক কিছু বলে এবং বিভিন্ন রাশির মানুষ বিভিন্ন ধরণের হয়ে থাকে। তাহলে জেনে নেওয়া যাক রাশি অনুযায়ী নারীরা কেমন বউ হবে।

১. মিথুন – মিথুন রাশির নারীদের মন বোঝা খুবই কঠিন। একজনের মধ্যেই আলাদা মনের নারীর খোঁজ মেলে। সময় অনুযায়ী এরা ভিন্ন হয়ে থাকে। কিন্তু এরা ব্যক্তিত্বে স্বতন্ত্র। সব কিছুর বিষয়ে জানতে এরা খুব আগ্রহী। সবসময় বিভিন্ন বিষয় সম্পর্কে এরা প্রশ্ন করে থাকে। অনেক ক্ষেত্রেই সৃজনশীলতা দেখা যায়।

২. মেষ – এই রাশির নারীদের সহজাত নেতৃত্ব দেবার ক্ষমতা থাকে। প্রতিটা দিন কর্মচঞ্চল করে রাখে নিজেকে। এরা কাজের ক্ষেত্রে কখনো কখনো নিজের ক্ষমতার বেশি কাজের ভার নিয়ে ফেলে। একটা কাজ শেষ হবার আগেই আরেকটা কাজ শুরু করে দেয়। নিজের মতামত জানানোর ব্যাপারে এরা একেবারেই ঠোঁটকাটা।

৩. কর্কট – কর্কট রাশির নারীদের মধ্যে চাঁদের প্রভাব প্রবল। চাঁদের মতই এদের মেজাজ ওঠা নামা করতে থাকে।সাধারণত সহজ-সরল, শান্তিপ্রিয় স্বভাবের হয় এরা। তবে ভিতরে ভিতরে সব কিছু জটিল করে ভাবে। সব রাশির মধ্যে কর্কট রাশির নারীদের বৈশিষ্ট্য বোঝা সবথেকে কঠিন। এরা নিজের বা অন্যের সমালোচনা সইতে পারে না।

৪. বৃষ – প্রথম দেখাতে এদের খুব শান্ত-শিষ্ট, মিষ্টি স্বভাবের মনে হতে পারে। কিন্তু রেগে গেলে তার আসল রূপ দেখা যায়। ভালোবাসার মানুষের থেকে ছোট ছোট উপহার পেতে এরা খুব ভালবাসে। তাহলেই রাগ কমে যায়। তবে এরা খুবই একগুঁয়ে, যা ভাবে তাই করে। মানসিক শক্তির দিক দিয়েও তারা যথেষ্ট সবল।

৫. বৃশ্চিক – বৃশ্চিক রাশির নারী মানেই রহস্যময়ী। চুম্বকের মতো আকর্ষণে জড়িয়ে ফেলতে পারে যেকোন পুরুষকে। প্রকৃতির সঙ্গে একই সুরে বাঁধা থাকে এদের মেজাজ। এই রাশির নারীরা সাধারণত আত্মবিশ্বাসী ও শক্তিশালী হয়ে থাকে। সোজাসাপটা আচরণ পছন্দ করে। পরিস্থিতি নিজের নিয়ন্ত্রণে রাখতে পারে।

৬. কন্যা – কন্যা রাশি নারীসুলভ এবং চুপচাপ। তবে এদের অবলা ভাবলে ভুল হবে। চুপচাপ হলেও একেবারে শান্তশিষ্ট মোটেও নয় এরা। কন্যা রাশির নারীদের মধ্যে নিজেকে “নিখুঁত” করে গড়ে তোলার প্রবণতা দেখা যায়। নিজেকে আরও উন্নত করে তুলতে অনেক সময়ে তারা জীবনকে জটিল করে ফেলে।

৭. সিংহ – এই রাশির নারীদের মধ্যে সিংহের বৈশিষ্ট্য লক্ষ্য করা যায়। সব জায়গাতেই আকর্ষণের কেন্দ্রবিন্দু হয়ে থাকে এরা। সিংহের মতই বুদ্ধিমতী এবং শক্তিশালী চরিত্রের হয়। সৃজনশীলতা লক্ষ্য করা যায়। সঙ্গীর জীবনে তিনি হয়ে থাকতে চান সবথেকে গুরুত্বপূর্ণ।

৮. তুলা – তুলা রাশির নারীদের সবচেয়ে বড় গুণ এরা অন্যের সঙ্গে মিশতে পারা। তুলা নারীদের প্রতি অন্যদের আকর্ষণও বেশি থাকে। এদের মধ্যে পরস্পরবিরোধী যৌক্তিক বিবেচনা এবং অযৌক্তিক আবেগ একসঙ্গে থাকে।

৯. মীন – মীন রাশির নারীদের মধ্যে লুকিয়ে থাকে অনেক রহস্য। এরা প্রাণবন্ত, রোমান্টিক, স্পর্শকাতর হয়। কিন্তু সেটা সহজে বুঝতে পারা যায় না। এরা আধ্যাত্মিকতায় গভীর বিশ্বাস করে। খুব সাধারণ কিছুর মধ্যেও অর্থ খুঁজে বেরায়। পরিচিত-অপরিচিত সবার প্রতিই দয়ালু হয়।

১০. মকর – মকর রাশির নারীরা উচ্চাকাঙ্ক্ষী হয়। এই গুনটা নিয়ে সাফল্য অর্জনে যায় এবং পথে কোন বাধা সহ্য করে না। একই সঙ্গে এরা খুবই একগুঁয়ে, কোন কথা শোনে না। তবে সহজে মেজাজ খারাপ করে না। মাথা ঠান্ডা রেখেই নিজের প্রতিযোগীকে হারিয়ে দেয়।

১১. ধনু – ধনু রাশির নারীদের মধ্যে দার্শনিক বৈশিষ্ট্য দেখা যায়। সব পরিস্থিতিতেই সত্যের খোঁজ করা এদের বৈশিষ্ট্য। সব অভিজ্ঞতাকেই মূল্যবান বলে মনে করে। জীবনের সার্থকতা খুঁজে বেড়ায়। খুব স্বতঃস্ফূর্ত এবং স্বাধীনচেতা হয় এরা।

১২. কুম্ভ – কুম্ভ রাশির নারীরা কোন বাঁধনে থাকতে রাজি নয়। এদের চরিত্র বোঝা খুবই কষ্টকর। এদের মেজাজ সময় অনুযায়ী পরিবর্তনশীল। মুহূর্তের মধ্যে নিজেদের পরিবর্তন করে ফেলতে পারে। দুর্বলের প্রতি মায়া, মমতা লক্ষ করা যায়। অনেকক্ষেত্রে সমাজসেবী হয়ে থাকে এই রাশির নারীরা।

Related Articles

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *

Close